একটি পারফিউম নাকি একাধিক পারফিউম?

একাধিক-পারফিউম

আপনার কাছে কয়টি পারফিউম আছে? আপনি আপনার কালেকশনে কয়টি পারফিউম রেখেছেন? আমাদের খুবই অবাক হতে হয় যখন আমরা শুনি একজন মানুষ একটি পারফিউমই সারা বছর ধরে ব্যবহার করে! এই পৃথিবীতে আদিকাল থেকে শুরু করে যুগ যুগ ধরে বিভিন্ন পারফিউম বিভিন্ন ব্র্যান্ডের নামে তৈরী হয়ে এসেছে, সুতরাং এত সুন্দর সুন্দর সুগন্ধিগুলো থেকে আপনি কিভাবে একটি পারফিউমকেই আপনার সিগনেচার পারফিউম হিসেবে বেছে নিতে পারেন এবং কিভাবে আপনি সেই পারফিউমটি সারা বছর ধরে বিভিন্ন ঋতুতে ব্যবহার করতে পারেন! পারফিউম কিন্তু এখন বিভিন্ন ঋতুতে ব্যবহার উপযোগী করে তৈরী করা হয়। মানে হচ্ছে, যে পারফিউমটি আপনি গ্রীষ্মকালে ব্যবহার করছেন সেই পারফিউমটি হয়ত আপনি শীতকালে ব্যবহার করতে পারবেন না।

dior_sauvage_new

কারন, গ্রীষ্মকালীন পারফিউম শুধুমাত্র গ্রীস্মকালে ব্যবহার করার জন্যই তৈরী করা হয় এবং শীতকালীন পারফিউম শুধুমাত্র শীতকালে ব্যবহার করার জন্যই তৈরী করা হয়। আপনি গ্রীস্মকালে এমন একটি পারফিউম ব্যবহার করতে চাইবেন যেন আপনার শরীরে অতিরিক্ত ঘাম হলেও সেই পারফিউম এর গন্ধ বা স্থায়ীত্ব সারাদিন থাকে। অন্যদিকে, শীতকালে আপনি স্বাভাবিকভাবেই ঘামবেন না বা আপনার শরীর থেকে ঘাম বের হবে না। তো, সেইসময়ে আপনি এমন একটি পারফিউম ব্যবহার করতে চাইবেন যেটা আপনার শরীরে সারাদিন থাকবে। সুতরাং, গ্রীষ্মকালীন পারফিউমটি যদি আপনি শীতকালে ব্যবহার করেন তাহলে ঐ পারফিউমটি হয়ত ভালো কার্যক্ষমতা দিতে পারবে না। একইভাবে, আপনি যদি শীতকালীন পারফিউম গ্রীষ্মকালে ব্যবহার করেন তাহলেও আপনি একটি বাজে অভিজ্ঞতা লাভ করতে পারেন। একইভাবে বর্ষাকাল, হেমন্তকাল বা শরৎকালের জন্য আলাদা আলাদা পারফিউম বিভিন্ন ব্র্যান্ড তৈরী করেছে। সুতরাং, আপনি কিভাবে একটি পারফিউম সারা বছর ধরে ব্যবহার করেন এটা ভেবে আমরা সত্যিই একটু আশ্চর্য হই।

CH-Men-Prive-100ml-EDT-for-Men

যদি একটি সহজ উদাহরণ দিই তাহলে হয়ত ব্যপারটা আরও পরিষ্কার হবে। আপনি যদি প্রতিদিন ডাল, ভাত, মাছ দিয়ে তিনবেলা খাবার খান এবং এটা যদি বছর ধরে চলে তাহলে আপনার সেই খাবারের প্রতি কি রুচি থাকবে? ঐ একই ডাল ভাত এবং একই মাছের তরকারির উপর কিন্তু আপনার আর রুচি থাকবে না। মাঝে মাঝে আমরা ভাল খাবার খাই, পোলাও-মাংস বিরিয়ানি খাই, ফাস্ট ফুড খাই, মাঝে মাঝে রেস্টুরেন্টে খেতে যাই – কেন যাই? কেননা আমরা আমাদের স্বাদের পরিবর্তনের জন্য যাই, তাইনা? একইভাবে পারফিউমের বেলাতেও এই কথাটি সত্যি। আপনি যদি একইভাবে সারা বছর ধরে একই পারফিউম ব্যবহার করেন তাহলে বুঝতে হবে যে, আপনার ব্যক্তিত্বে সমস্যা আছে। কারন আপনি তো একজামা পুরো সপ্তাহ ধরে পরেন না, আপনাকে প্রতিনিয়তই আপনার জামাটি পাল্টাতে হয় তাইনা! জামাকাপড় আমরা আমাদের পছন্দমত অনেক জায়গা থেকে বিভিন্ন রকমের কিনে থাকি। তো, পারফিউমের ব্যপারেও কিন্তু এই কথাটা সত্যি। আপনার কাছে একটি পারফিউম আছে তার মানে এই না যে, আপনি আরেকটি পারফিউম কিনতে পারবেন না বরং এটাই স্বাভাবিক যে আপনার কাছে একাধিক পারফিউম আছে আর আপনি বিভিন্ন সময়ে একাধিক পারফিউম ব্যবহার করেন। আপনি একটি পারফিউম সব জায়গায় ব্যবহার করবেন না এটাই স্বাভাবিক। আরেকটি ব্যাপার হল এই যে, এটা অপব্যয় না। পারফিউমের আয়ুষ্কাল সাধারণত ৩-৫ বছর পর্যন্ত থেকে থাকে তার মানে এই সময়ে এই পারফিউমটির কোন কিছুই হবে না। আপনার কাছে যদি সাতটা পারফিউম থাকে এবং আপনি যদি সেটা ৩-৫ বছরের মধ্যে শেষ করেন তাহলে কোন সমস্যাই হবে না। সেক্ষেত্রে, আপনি প্রতিদিন একটি করে মানে সপ্তাহে সাতদিন একটি করে নতুন পারফিউম ব্যবহার করতে পারেন। এবং সেটাই আপনার ব্যক্তিত্বকে আর দশজনের কাছে ফুটিয়ে তুলবে। একই পারফিউম যদি আপনি প্রতিদিন ব্যবহার করেন তাহলে আপনার আশেপাশের মানুষজনেরও কিন্তু একধরনের একঘেয়েমি বোধ চলে আসতে পারে আপনার উপর। আপনি যেখানে চাকরি করেন বা কাজ করেন সেখানে যদি আপনি একই পারফিউম বারবার ব্যবহার করতে থাকেন তাহলে আপনার আশেপাশের মানুষজন আপনাকে একঘেয়ে বা সেকেলে মনে করতে পারে! তো এই কারনে, আপনার যদি সামর্থ্য থাকে তাহলে আমি বলব আপনার ন্যুনতম সাতটি পারফিউম থাকা দরকার। আর এর বাইরে আপনার কাছে কতটি পারফিউম থাকা দরকার সেটা আপনার আর্থিক অবস্থার উপর নির্ভর করে। এমন কিছু মানুষদের সাথে আমার পরিচয় হওয়ার সৌভাগ্য হয়েছে যাদের কাছে আমি ৩০০ বোতল পর্যন্ত পারফিউমের বিশাল সংগ্রহ দেখেছি! কিন্তু তার মানে এই না যে, আপনারও ৩০০ বোতল পারফিউম থাকা দরকার। আপনার আর্থিক অবস্থার কথা বিবেচনা করে ন্যুনতম ৭ টি পারফিউম রাখা যেতে পারে।

Tom-Ford-Collection

আরেকটা ব্যাপার হল, আপনি যদি আর্থিকভাবে সচ্ছল হন, কিন্তু আপনি যদি সুগন্ধি ব্যবহার না করেন তাহলে আপনি কিন্তু আমাদের উপর কিংবা যারা পারফিউম ব্যবসাটাকে টিকিয়ে রেখেছে তাঁদের উপর ইনসাফ করছেন না। ব্যাপারটা এমন যে, আপনি বাজারে ১০০০০ টাকা নিয়ে গিয়েছেন এবং বাজার থেকে সবচেয়ে সস্তা মাছ কিনে আনছেন কারন আপনার টাকা নষ্ট হবে বলে। অথচ, একজন মানুষ যদি বড়লোক হয় তাহলে সে বাজারে গিয়ে বাজারের সবচেয়ে দামী মাছটি কিনে আনবে এটাই স্বাভাবিক। কারন, ঐ যে মাছ বিক্রেতা যে বাজারের সবচেয়ে দামী মাছটি বিক্রি করছে সে যদি আপনার কাছে মাছ বিক্রি করতে না পারে তাহলে ওর সংসার চলবে না।

fish-seller

তেমনিভাবে আপনি যদি বড়লোক হন এবং আপনি যদি বাংলাদেশ থেকে পারফিউম না কেনেন তাহলে বাংলাদেশে যেসব আমদানিকারক আছেন যারা কিনা দামী পারফিউম আমদানি করে থাকেন তাঁদের ব্যবসা চলতে পারে না। আপনার কাছে টাকা আছে আপনি ২২০০০-৩০০০০ টাকা দামের পারফিউম কেনেন কোন সমস্যা নেই, কোন জায়গায় কোন সমস্যা নেই, কেন আপনি ১০০০-১৫০০ টাকার বডি স্প্রে ব্যবহার করবেন? আরেকটা জিনিস হল, আপনার কাছে টাকা নেই কিন্তু আপনার ইচ্ছা আছে তাহলে আমি বলব, আপনার দামী পারফিউম কেনার দরকার নেই। আপনার সামর্থ্য অনুযায়ী আপনি খরচ করেন। আপনার কামাই হচ্ছে ১০০০০ টাকা, আপনি আপনার সামর্থ্য অনুযায়ী ১৫০০-২০০০ টাকা বা আপনার অবস্থা বুঝে আপনি পারফিউম কিনতে পারেন। কিন্তু আপনার মাসিক কামাই হচ্ছে ১০০০০ টাকা তো আপনি ৫০০০ টাকা বা ১০০০০ টাকার পারফিউম কেন কিনবেন? আপনার সেই সামর্থ্য তো নেই! আল্লাহ তায়ালা আমাদের যার যার অবস্থা ঠিক করেই রেখেছেন, তো সেই অবস্থার উপর ভিত্তি করেই আমাদের কেনাকাটা করতে হবে। এটা শুধু পারফিউমের বেলায় নয়, জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রেই এই কথাটি প্রযোজ্য। আপনাকে আপনার আয় বুঝে ব্যয় করতে হবে নাহয় সেটা আপনার এবং আপনার পরিবারের উপর ইনসাফ করা হবে না। আবার ধরেন, আপনি মাসে ১ লাখ টাকার উপরে আয় করেন তো সেক্ষেত্রে আপনি ২২০০০-৩০০০০ টাকার পারফিউম কিনতেই পারেন কেননা আপনার পরিবার চালানোর জন্য যথেষ্ট পরিমাণ টাকা আপনার তারপরও থাকবে। আবার একইভাবে আপনার মাসিক কামাই যদি হয় ১০০০০ টাকা তাহলে আপনি ১০০০-২০০০ টাকা দামের পারফিউম কিনতে পারেন, এর বেশি দামে কেনাটা আপনার জন্য ঠিক হবে না। তো যার যার অবস্থা যেরকম, সে তাঁর অবস্থায় থেকে সেরকম দামের পারফিউম কিনবে। বড়লোক হলে বাজারে যাবেন, সবচেয়ে দামী মাছটি কিনবেন, কোন সমস্যা নেই। আবার এক জায়গায় স্যুট কিনতে গেলেন, সবচেয়ে দামী স্যুট কেনেন, খুঁজে বের করুন বাংলাদেশে সবচেয়ে দামী স্যুট কার কাছে আছে সেই স্যুটটি কেনেন, কোন সমস্যা নেই। আপনি গরিব, আপনার কাছে আল্লাহ টাকা দেয়নি আপনি সেইভাবে আল্লাহর শুকরিয়া আদায় করেন, আল্লাহ আপনাকে যা দিয়েছে তা নিয়ে সন্তুষ্ট থেকে আপনার সামর্থ্য অনুযায়ী আপনি জিনিস কেনেন কোন সমস্যা নেই তাতে।

 

worlds-expensive-suit

আমাদের এই ব্লগ পোস্ট লেখার একটাই উদ্দেশ্য যে, আপনাদের চিন্তা ভাবনার যেন পরিবর্তন হয় এবং আপনারা যেন সেকেলে মনোভাব থেকে বের হয়ে আসেন। এখন আমরা জাতি হিসেবে অনেক উন্নত হয়েছি, ব্যক্তিগত ভাবেও আমাদের রুচির অনেক পরিবর্তন ঘটেছে এবং আমাদের নিজেদের জন্য খরচ করার মানসিকতাও আলহামদুলিল্লাহ অনেক ভাল। আল্লাহই কিন্তু আমাদের এই অর্থগুলো দিচ্ছে। তো আপনারা যদি একইভাবে পারফিউম কেনেন আপনাদের দৈনন্দিন জীবনে ব্যবহারের জন্য, সেটা আপনার ব্যক্তিত্বকে অন্য সবার কাছে সুন্দরভাবে ফুটিয়ে তুলবে। এই কারনেই বিভিন্ন উদাহরনের মাধ্যমে আমরা আপনাদের এই কথাগুলো বললাম যে, একজন মানুষের কাছে একটি পারফিউম থাকবে এটা স্বাভাবিক না, একাধিক পারফিউম থাকবে এটাই স্বাভাবিক।

যদি আপনাদের এই পোস্টটি পড়ে ভাল লেগে থাকে তাহলে আপনি আমাদেরকে কমেন্টের মাধ্যমে জানাবেন এবং আমাদের পোস্টটি ফেসবুক বা অন্যান্য সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমগুলোতে শেয়ার করবেন। সবাইকে ধন্যবাদ মনোযোগ দিয়ে আমাদের লেখাটি পড়ার জন্য।

About 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *